Monday, October 19, 2020
টপ নিউজরাজশাহী

রাসিক নির্বাচন:শুরুতেই দ্বদ্বে আ’লীগ-বিএনপি

357views

রাসিক নির্বাচন:শুরুতেই দ্বদ্বে আ’লীগ-বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের শুরুতেই আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থী বিএনপির বিরুদ্ধে ও বিএনপির প্রার্থী আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছেন। রীতিমত দু’পক্ষই আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনসহ বেশকিছু অভিযোগ দিয়েছেন। বুধবার ২ টার দিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে জেলা বিএনপির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন তপু ৭টি অভিযোগ সম্বলিত একটি অভিযোগপত্র নির্বাচন কমিশনের কাছে জমা দিয়েছেন। এরআগে বেলা ১১টার দিকে একই অভিযোগে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামানের পক্ষে তার সদস্য সচিব মুসাব্বিরুল ইসলাম অপর একটি অভিযোগ নির্বাচন কমিশনের কাছে দেয়া হয়েছে। দুই মেয়র প্রার্থী একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। গত রাসিক নির্বাচনে প্রচারণার শেষ মহুর্তে বড় দুই দল আওয়ামী লীগ-বিএনপির প্রার্থীরা একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছিলেন। কিন্তু এবার শুরুতেই দুই প্রার্থীর অভিযোগ নির্বাচন কমিশনের কাছে জমা পড়লো। অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রাসিক নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা আতিয়ার রহমান। তবে সাধারণ ভোটাররা বলছেন অভিযোগ নয়, সুষ্ঠু, দ্ব›দ্ববিহীন একটি নির্বাচন হবে এটাই প্রত্যাশা।

রাসিক নির্বাচনের সহকারী কর্মকর্তা অফিসার আতিয়ার রহমান জানান, শুরুতেই দুই প্রার্থীর অভিযোগ নির্বাচন কমিশনকে অনেকটাই বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে ফেলেছে। নির্বাচন কমিশন সব দিক থেকে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দেয়ার চেষ্টা করছে। এরমধ্যে যদি কোনো প্রার্থী অভিযোগ দেয় তাহলে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ইতোমধ্যে আইনশৃংখলা বাহিনীর সহযোগিতা নেয়া হচ্ছে। তবে কিছু সময় গেলে এসব অভিযোগ আর থাকবে না বলেও জানান তিনি।

এদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল তার অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, গত ৯জুলাই নগরীর ৪নং ওয়ার্ড বহরমপুর (বুলনপুর) এলাকায় সিহাবের বাড়ীর পাশে বিএনপি প্রার্থী মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের ধানের শীষ প্রতীকের ফেস্টুন ও পোষ্টারবাহী পিকাআপ ভ্যানের উপর নৌকা প্রতীক সমর্থিত কর্মীরা হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে (গাড়ি নং- রাজ মেট্রো-ন-১১০১২২)। এতে বিএনপি মেয়র প্রার্থীর ফেস্টুন ও পোস্টার নষ্ট হয় ও পিকআপ ভ্যানের লুকিং গøাস ভেঙ্গে যায়। গত মঙ্গলবার রাতে ২০নং ওয়ার্ডে বেলদারপাড়ায় নৌকা প্রতীকের কর্মীরা বিএনপির মনোনিত প্রার্থী বুলবুলের ধানের শীষ প্রতীক টাঙ্গানো ফেস্টুন ভাংচুর করে এবং ঝুলানো পোস্টার ছিড়ে ফেলে। একই রাত ২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত ধানের শীষ প্রতীকের লাগানো ফেস্টুন, বালিয়াপুকুর মোড় থেকে রুয়েট ও ভদ্রার মোড় পর্যন্ত সকল ফেস্টুন খুলে ফেলা হয়। অলকার মোড় হতে আলুপট্টির মোড় পর্যন্ত ধানের শীষ প্রতীকের সকল ফেস্টুন খুলে ফেলা হয়েছে। রাজশাহী সিটি কলেজ গেট থেকে সার্ভে ইন্সটিটিউট পর্যন্ত লাগানো ধানের শীষ প্রতীকের সকল ফেস্টুন নৌকা সমর্থিত কর্মীরা খুলে ফেলে। ৬নং ওয়ার্ডে জিপিও’র সামনে, ১৯ নং ওয়ার্ড ছোট বনগ্রাম এলাকায়, ২৭নং ওয়ার্ড বালিয়াপুকুর এলাকায় ও ৩০নং ওয়ার্ড বিনোদপুর বাজারে ধানের শীষ প্রতীকের প্রচার মাইক এর কর্মীদের চরথাপ্পর মারা হয় এবং প্রচার কাজে বাধা দেয়া হয়। বুধবার বেলা ১১টায় পুলিশ ভ্যানের উপস্থিতিতে ১৩নং ওয়ার্ডে শহীদ নজমুল হক উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সম্মুখ হতে বর্ণালীর পিছনের মোড় পর্যন্ত রাস্তায় ধানের শীষ প্রতীকের কোন প্রকার ফেস্টুন ও পোস্টার লাগাতে দেয়া হয়নি এবং ধানের শীষ সমর্থিত কর্মীদের লাঞ্ছিত করা হয়েছে।

অপরদিকে একই ধরনের অভিযোগ তোলা হয়েছে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে। অভিযোগে বলা হয়েছে বিএনপির প্রার্থী দ্বদ্বে সৃষ্টি করার লক্ষ্যে বিভিন্নস্থানে মিথ্যে কথা বলে বেড়াচ্ছেন। বিভিন্ন এলাকায় সংখ্যালঘু ভোটারদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। তারা নিজেরাই গাড়ির কাঁচ ভেঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন।

এদিকে নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মীর ইকবাল জানান, নির্বাচনে অভিযোগ থাকবেই। তবে দেখতে হবে যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে সেটি কতটা সঠিক। তিনি বলেন নির্বাচন কমিশন রয়েছে। তারা অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে এটাই আমরা প্রত্যাশা করি।
এব্যাপারে জেলা বিএনপির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন তপু বলেন, আমরা চাই সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন। গত দুই দিনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর সমর্থকরা বিএনপি মনোনিত মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পোস্টার ব্যানার টানাতে দিচ্ছে না সে বিষয়ে অভিযোগ দিয়েছি। তারা বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে সে বিষয়টিও অভিযোগে তুলে ধরা হয়েছে। তিনি বলেন, সুস্পষ্ট প্রমানাদির ভিত্তিতেই অভিযোগ দেয়া হয়েছে। সেই সাথে বিষয়গুলো খতিয়ে দেখার জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে।

Leave a Response