Tuesday, October 27, 2020
টপ নিউজরাজশাহী

রাজশাহীর বাজারে দ্বিগুণ দাম বেড়েছে মরিচের

249views

রাজশাহীর বাজারে দ্বিগুণ দাম বেড়েছে মরিচের

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর কাঁচাবাজারে মোটামুটি স্থিতিশীল রয়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন দ্রব্যের দাম। তবে গত সপ্তাহ থেকে বাজারে দাম বাড়তে থাকা মরিচের ঝাঁজ যেন বেড়েই চলেছে। গত সপ্তাহে দাম বেড়ে যে মরিচের দাম ৫০ টাকা কেজি হয়েছিল। সপ্তাহ ঘুরতেই তার দাম দ্বিগুন বেড়ে এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ১০০টাকা কেজি।

বর্ষনের কারনেই মরিচের দাম এমন বাড়ছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। তবে দুই থেকে তিনদিন আগে ১৫০ টাকা কেজিতে ঠেকেছিল মরিচের দাম। শুক্রবার কেজিতে ৫০ টাকা কমে ১০০ টাকা কেজিতে মরিচ বিক্রি হয়েছে রাজশাহীর বিভিন্ন কাঁচাবাজারে। বাজারে মানভেদে আলু বিক্রি হচ্ছে ২০-২২টাকা, বেগুন, পটল, ঢেড়স, ঝিঙা, পেঁপে, মিষ্টি কুমড়া সবগুলোই প্রায় ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। লাউ প্রতি পিস ২০ টাকা, কচুঁ কেজি প্রতি ৩০ টাকা ও সকল প্রকার শাক ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দাম কমে পেঁয়াজ ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও আদা ৮০-১০০ ও রসুন ৭০-৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাছের মধ্যে সিলভার রকম অনুসারে ৮০-১৫০ টাকা, পাঙ্গাশ ৮০-১৫০ টাকা, চিংড়ি ও গলদা চিংড়ি ৮০০-১০০০ টাকা, বাটা ১২০-১৪০ টাকা, বড় শোল ৯০০ টাকা এবং ছোট শোল ২০০-৬০০ টাকা, ট্যাংরা ও পাবদা ৪০০-৪৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও রুই সাইজ অনুযায়ী ১৬০-৩৫০ টাকা, শিং ৫০০-৮০০ টাকা ও ইলিশ রকম অনুসারে ৬০০-১২০০ টাকা কেজি। ঈদের পরে বাজারে দাম কমতে শুরু করেছে মাংসের। বাজারে ব্রয়লার ১৪০-১৫০ টাকা, সোনালী ২১০ টাকা, লেয়ার ১৭০ টাকা ও দেশি মুরগী ৩৮০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া গুরুর মাংস ৪৫০ টাকা ও খাসির মাংস ৭০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ডালের দামও স্থিতিশীল রয়েছে। মানভেদে মুসুরের ডাল ৬০-৮০ টাকা, খেসারী ৬০, মাসকলাই ৮০, সোনা মুগ ৪০, মোটা মুগ ৯৫, বুটের ডাল ৮০ ও এ্যাঙ্কর ৪০ টাকা কেজি। প্রতি কেজিতে দুই- এক টাকা বেড়ে প্রতি কেজি আটাশ চাল ৫০, ৫২, ৫৫ টাকা, মিনিকেট ৬০ টাকা, স্বর্ণা ৪২-৪৫ টাকা, জিরা ৫৮ থেকে ৬০ টাকা ও পোলাও ৭৫ থেকে ৮৫ টাকা ও পায়জাম বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। তবে চালের দাম বাড়ার সম্ভাবনা আছে বলে জানান বিক্রেতারা।

Leave a Response