Tuesday, October 27, 2020
টপ নিউজরাজনীতি

মান ভেঙ্গেছে মিনু, মিলনের! কেন্দ্রীয় নির্দেশের অপেক্ষায় নাদিম

198views

মান ভেঙ্গেছে মিনু, মিলনের! কেন্দ্রীয় নির্দেশের অপেক্ষায় নাদিম

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মান ভেঙ্গেছে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুর। শুধু তারই মান ভাঙ্গেনি, নিজের অবস্থান ঠিক রাখতে দলের অভিমানী আরো অনেক শীর্ষ নেতাদের মান ভাঙ্গিয়েছেন তিনি। রীতিমত নেতাকর্মীদের সাথে বুলবুলের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় শুরু করেছেন তিনি। একই সাথে বিএনপির সব নেতাকর্মীদের এক কাতারে এনে দাঁড় করিয়েছেন মিনু। ফলে দ্বন্দের বেড়াজালে আবদ্ধ বিএনপি আবারোও সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছেন। তবে, বিএনপি নেতা নাদিম মোস্তফাকে এখনো কাছে টানতে পারেননি বুলবুল।

রাসিক নির্বাচনের ডামাডোল বেজে উঠার পর তিনি একেবারে নিশ্চুপ ছিলেন। রাসিক নির্বাচন নিয়ে সাংবাদিক বা কোনো মহলেই তিনি কথা বলতেন না। এমনকি রাসিক নির্বাচনের জন্য দলের সিনিয়র নেতারা তাকে প্রস্তাবও দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি রাজি হননি। নিরব থাকা মিজানুর রহমান মিনু হঠাৎ করেই জ¦লে উঠেছেন। জ¦লে উঠা মিনু নেতাকর্মী নিয়ে সদ্য বিদায়ী মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের মনোনয়নপত্র জমা দিতে নির্বাচন কমিশন অফিসে হাজির হন। একই সাথে জেলা বিএনপির সাথে নগর বিএনপির দা কুড়াল সম্পর্ক থাকলেও জেলার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত হন নির্বাচন কমিশন অফিসে। তবে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এড.নাদিম মোস্তফা সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। রাসিক নির্বাচনকে সামনে রেখে ভেদাভেদ, মান অভিমান, দ্ব›দ্ব ভুলে রাজশাহী বিএনপি আবারো উজ্জীবিত হচ্ছে বলেও মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।
জানা গেছে, রাজশাহীর মহানগর বিএনপির সবশেষ কমিটি গঠনের পর থেকে মিনু বুলবুলের দ্বন্দে প্রকাশ্য দুরত্ব বাড়ে। শীর্ষ এই দুই নেতা অবস্থান করেন নির্ধারিত দুরত্ব বজায় রেখে। মিনু অনুসারি কর্মীরা অনেকেই মেয়র বুলবুলের কাছে কাজে গিয়ে অসম্মানিত হয়ে ফিরে এসছেন এমন অভিযোগও পৌঁছে মিনুর কানে। এসব নিয়ে দুই নেতার দুরত্বই নয় কর্মীদের মধ্যেও মন ধরাধরি হয়। বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা অভিযোগ করেন মেয়র থাকাকালে বুলবুল রাসিকের লোকজন ও গুটি কয়েক নবীণ নেতাদের নিয়ে নিজের মত ব্যস্ত সময় পার করেছেন। দলীয় বেশিরভাগ নেতা কর্মীই উপেক্ষিত হয়েছেন। এসব মিলিয়ে দলের লোকজনের মধ্যে বুলবুলের গ্রহনযোগত্য প্রশ্নবিদ্ধ হয়। এ অবস্থায় নির্বাচনের মাঠে বুলবুল কাদেরকে কাছে পাবেন এনিয়ে প্রশ্ন উঠে। দলীয় সূত্র জানায় কেন্দ্র থেকে বুলবুলকে প্রার্থী হিসেবে চুড়ান্ত করার পর থেকে তিনি বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকে কাছে টানার চেষ্টা শুরু করেন। বিশেষ করে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন, সাবেক জেলা সভাপতি নাদিম মোস্তফা, প্রবিন বিএনপি নেতা কবির হোসেন, জেলা বিএনপির বর্তমান কমিটির নেতাদের পাশে পেতে বেশ কাট খড় পুড়িয়েছেন। দলীয় সূত্রগুলো বলছে, এরই মধ্যে মিজানুর রহমান আবারোও বুলবুলের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন অফিসে বুলবুলের মনোমনপত্র জমাদানের সময় উপস্থিত হন মিনু। বুলবুলের পাশে দাঁড়িয়েছেন মিলনও । বলা হচ্ছে যারা এখনো বুলবুলের উপর অভিমান করে রয়েছেন দু’একদিনের মধ্যে তারাও এক কাতারে এসে দাঁড়াবেন। তবে, নাদিম মোস্তফা এখনো বুলবুলের পাশে আসেননি। বুলবুল তারও মান ভাঙ্গানোর চেষ্টা করেছেন, তবে এখন পর্যন্ত কৌশল অবলম্বন করছেন নাদিম মোস্তফা। বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, দলীয় শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের নির্দেশনার অপেক্ষায় আছেন নাদিম মোস্তফা। তাদের নির্দেশনা পেলে ইচ্ছা না থাকলেও মাঠে নামতে বাধ্য হবেন তিনি। শেষ পর্যন্ত মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এই কৌশলটাই কাজে লাগাবেন, বলছেন বুলবুলের ঘনিষ্টজনেরা।

Leave a Response