Saturday, October 24, 2020
রাজশাহী

বাগমারায় নারী গণধর্ষণের ব্যবস্থা না নেয়ায় ইউএনও’র ক্ষোভ

343views

বাগমারায় নারী গণধর্ষণের ব্যবস্থা না নেয়ায় ইউএনও’র ক্ষোভ

বাগমারা প্রতিনিধি: বাগমারায় এক অজ্ঞাত বাকপ্রতিবন্ধী নারী (৩৮) গণধর্ষণের শিকারের ব্যবস্থা না নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাগমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকিউল ইসলাম। সেই সাথে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল মমিনকে নির্দেশ দিয়েছেন। গতকাল রোববার রাজশাহী থেকে প্রকাশিত “দৈনিক রাজশাহীর সংবাদ” পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদটি দেখে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সমাজসেবা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশ পেয়ে গতকাল সকালেই সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল মমিন ঘটনাস্থলে যান এবং ঘটনার সত্যতা পান বলে সমাজসেবা অফিসের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্রে জানা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১১ জুলাই রাতের কোন এক সময়ে ঝিকরা ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আফজাল হোসেনের বাড়ী থেকে একই এলাকার বখাটে আব্দুস সালাম (২৮), আব্দুল মতিন (২৩), নাইম ইসলাম(২০), মইনুল ইসলাম(২৪), সাজ্জাদ হোসেন (২৫) ও রফিকুল ইসলাম (২৫) বাকপ্রতিবন্ধী অজ্ঞাত নারীটিকে জোর পূর্বক ধরে নিয়ে যায় এবং পার্শ্বের একটি আখ ক্ষেতে মুখ বেঁেধ পালাক্রমে ধর্ষন করে। মেয়েটি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে বখাটেরা পালিয়ে যায়। এক সময় মেয়েটির জ্ঞান ফিরলে সে চিৎকার দিয়ে আখ ক্ষেত থেকে বেরিয়ে আসে। এলাকার লোকজন বিষয়টি জানতে পারলে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। বিষয়টি নিয়ে এলাকার লোকজন সত্যতা যাচাইয়ের জন্য বসলে এলাকার কতিপয় প্রভাবশালীদের ইন্ধনে ধর্ষকেরা এক জোট হয়ে তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখায়। এক পর্যায়ে ইউপি সদস্য মানিক ও মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন ধর্ষনের বিষয়টি নিয়ে নাড়াঘাটা করলে ধর্ষকেরা তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিতে থাকে। তারা অবিলম্বে তদন্ত পূর্বক অজ্ঞাত বাকপ্রতিবন্ধী নারীর ধর্ষকদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল মমিনের সাথে যোগাযোগ করা তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দেখেছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে আলোচনার মাধ্যমে পরবর্তি ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

Leave a Response