Tuesday, October 20, 2020
সারাদেশ

পুঠিয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শ্রেণী কক্ষ সংকট

187views

পুঠিয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শ্রেণী কক্ষ সংকট

পুঠিয়া সংবাদদাতা: রাজশাহীর পুঠিয়ায় এক ডজন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণী কক্ষ সংকট দীর্ঘদিন যাবত। এতে করে পাঠদানে চরম ব্যঘাত ঘটছে। প্রতিনিয়ত কোমলমতি শিক্ষার্থীরা স্কুলে এসে সঠিক ভাবে পাঠ গ্রহণ করতে পারছে না। শিক্ষকরা বলছেন, বেশীর ভাগ বিদ্যালয়ের কক্ষ গুলো ফাটল, দীর্ঘ দিনের পুরনো ও জর্রাজীন্ন হওয়ায় এ সমস্যা দেখা দিয়েছে। শ্রেণী কক্ষ গুলোতে সময়মত সংস্কার না করায় তা অধিক ঝুকিপূর্ণ হয়ে উঠে। যার ফলে সে কক্ষগুলো পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। আর এতে করেই এই শ্রেণী কক্ষ সংকট দেখা দিয়েছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন এলাকায় ৮৯ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে ১৩টি বিদ্যালয়ের শ্রেণী কক্ষ সংকটের মধ্যে রয়েছে। এদের মধ্যে পীরগাছা, মাহেন্দ্রা, ধোপাপাড়া, সাত ঘোষপাড়া, আম ঘোষপাড়া, ভাংড়া, কজিরপাড়া, গন্ডগোহালী, তাড়াশ, বাশবাড়ী, মহনপুর, মাইপাড়া ও সুরেশসরি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শ্রেণী কক্ষ সংকটের তালিকায় রয়েছে। বিগত বছর গুলোতে ভূমি কম্পনের কারণে আম ঘোষপাড়া ও ধোপাপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি করে ভবনে ব্যাপক ফাটল দেখা দেয়ায় সে গুলোও পরিত্যাক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। বাকি স্কুল গুলো পুরনো টিনসেট ও দীর্ঘ দিনের জরার্জীন্ন ভবন হওয়ায় সে গুলো পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উল্লেখিত প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর মধ্যে পুরনো শ্রেণী কক্ষ পরিত্যক্ত হওয়ায় স্কুল শিক্ষক ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক শিক্ষার্থীদের দু’শিপ্টের মাধ্যমে পাঠদান করানো হচ্ছে। শ্রেনী কক্ষ সংকটের কারণে একটি কক্ষে গাদাগাদি করে বসে পাঠ গ্রহণ করছে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে পীরগাছা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফরিদা খাতুন বলেন, শ্রেণী কক্ষের সংকটের কারণে প্রায় আড়াই শতাধিক ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান নিয়ে আমাদের অনেক সমস্যায় ভূগতে হচ্ছে। কখনো স্কুল মাঠে আবর কখনো একটি কক্ষে দু’টি শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের গাদাগাদি করে পাঠদান করানো হয়। পুরনো ভবন পরিত্যক্ত ঘোষনা করায় গত কয়েক বছর থেকে এই স্কুলে শ্রেণী সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে এই স্কুলে দু’শতাধিক শিক্ষার্থী আছে। শ্রেণী কক্ষ সংকট থাকায় আমাদের দু’শিপ্টের মাধ্যমে পাঠদান করাতে হচ্ছে। বিষয় গুলো একাধিক বার উপজেলা শিক্ষা অফিসে জানানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রশিদা ইয়াসমিন বলেন, বর্তমানে কিছু বিদ্যালয়ের শ্রেণী কক্ষ ও অবকাঠামো সংকট রয়েছে। শিক্ষকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে যাচাই-বাচাই পূর্বক বিষয় গুলো মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ওই স্কুল গুলোতে নতুন ভবন নির্মাণ করা হলেই শ্রেণী কক্ষ সংকটের সমাধান হবে।

Leave a Response