Monday, October 26, 2020
নারীরাজনীতিরাজশাহী

নারীদের প্রচারেও এগিয়ে লিটন

405views

মহিলাদের দিয়ে প্রচরণায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: জমে উঠছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচন। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পাড়ামহল্লা এখন অনেকটাই সরগরম। মেয়র কাউন্সিলর প্রার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠছে পুরো নির্বাচনী এলাকা। নির্বাচন কমিশন থেকে প্রতিক বরাদ্দ দেয়ার পর থেকে চলছে প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা। শুধু মেয়র প্রার্থীরাই নয়, সংরক্ষিত আসন ও সাধারণ আসনের কাউন্সিলর প্রার্থীরাও নির্বাচন দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন। বিশেষ করে আদাজল খেয়ে গণসংযোগে নেমেছেন মহিলারা। তবে দুই মেয়র প্রার্থীর মধ্যে মহিলাদের দিয়ে প্রচরণায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন। শুরু থেকে তার পক্ষে দলের বিভিন্ন পর্যায়ের মহিলা নেতৃবৃন্দসহ স্ত্রী, মেয়ে মাঠে কাজ করছেন। কিন্তু বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে তার পরিবারের কাউকে মাঠে প্রচার প্রচারণায় দেখা যাচ্ছে না। এমনকি গণসংযোগের সময় বুলবুলের সাথে মহিলা দলের কোনো সদস্যদের মাঠে কাজ করতে দেখা যাচ্ছে না।
জানা গেছে, এবার অনেক আগে থেকেই আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের পক্ষে কাজ করছেন তার স্ত্রী ও নগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি শাহীন আক্তার রেণী, তার মেয়ে ছাত্রলীগ নেত্রী ফারিহা জামান অর্নাসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের মহিলা লীগের নেতৃবৃন্দ। সাথে রয়েছে জেলা ও মহানগর মহিলা লীগেরও নেতৃবৃন্দ। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে থেকে লিটনের পরিবার ও মহানগর মহিলা লীগের নেতবৃন্দ মাঠে রয়েছেন। বলা যায়, নির্বাচনের শুরু থেকেই আদাজল খেয়ে মেয়র প্রার্থী লিটনের পক্ষে মাঠে কাজ করছেন তারা। কিন্তু বিএনপির প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে নারী নেতৃবৃন্দদের মাঠে তেমন কাজ করতে দেখা যাচ্ছে না। গত নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে তার স্ত্রী রেবেকা সুলতানা সিমি, সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনুর স্ত্রী সালমা সাহাদাৎসহ বেশ কিছু নারী কর্মী মাঠে ছিল। নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত তাদের মাঠে দেখা যায়। বুলবুলের সাথে মহানগর মহিলাদলের শীর্ষ নেত্রীরা এক সাথে মাঠে কাজ করেছেন। কিন্তু এবার তার সাথে কাউকেই দেখা যাচ্ছে না। মুলত রাসিক নির্বাচনে মহিলা ভোটার পুরুষের থেকে কিচুটা বেশি। যার কারণে নির্বাচনে জয়লাভের বিষয়টি অনেকটাই মহিলা ভোটারদের উপরও নির্ভর করে। মহিলাদের যে প্রার্থী বাগিয়ে নিতে পারবে তার জয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে দাঁড়ায়। যার ফলে গণসংযোগ সময় মহিলাদের কাছে বেশি যেতে দেখা যায় প্রার্থীদের। পুরুষ ভোটারের চেয়ে মহিলা ভোটারদের মনজয় করতে পারলে সে প্রার্থী অনেকটাই এগিয়ে থাকে। সেদিক থেকে আগে থেকেই মাঠে মহিলাদের জায়গাটি দখল করে নিয়েছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী। বর্তমান মহিলা ভোটারদের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছেন মেয়র প্রার্থী লিটন। কিন্তু সে দৌড়ে অনেক পিছিয়ে রয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী বুলবুল। আওয়ামী লীগের প্রার্থী লিটনের স্ত্রীসহ মহিলা দলের নেত্রীরা যে জায়গা তৈরি করে নিয়েছেন তার ধারে কাছে যেতে পারেননি বিএনপির মেয়র প্রার্থী বুলবুল।
তবে বিএনপির শীর্ষ নেতারা বলছেন, নির্বাচনের এখনো অনেক সময় বাকি রয়েছে। যার কারণে বুলবুলের সাথে তার পরিবার বা মহিলাদলের নেত্রীবৃন্দ নেই। সময় হলে মহিলা দলের নেত্রীরা কাজ শুরু করবেন।

Leave a Response