Saturday, November 21, 2020
উত্তরাঞ্চলটপ নিউজরাজনীতিরাজশাহী

তানোরে হুশিয়ারি দিয়ে গেলেন আসাদ

তানোরে হুশিয়ারি দিয়ে গেলেন আসাদ

তানোরে হুশিয়ারি দিয়ে গেলেন আসাদ
তানোরে হুশিয়ারি দিয়ে গেলেন আসাদ
1.11Kviews

আ’লীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তানোর উপজেলা আ’লীগের আলোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেছেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে লাল সবুজের পতাকার বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হত না। ৩০ লক্ষ শহীদের বিনিময়ে এসেছে স্বাধীনতা। কিন্তু জাতির জনকের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে দেয়নি বেইমান মুস্তাকগং। ১৯৭৫ সালের পনের আগস্ট নির্মমভাবে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে উল্লাস করেছিল তারা। তাঁর মরদেহ রাতারাতি গুটি কয়েক ব্যক্তিরা দাফন করেছিলেন। যারাই জানাজায় যেতে চেয়েছিল তাদেরকেই গুলি করে হত্যা করার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। জাতির জনককে হত্যার পর তারা মনে করেছিল আওয়ামী লীগ নামক দলের চিহ্ন রাখবে না। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে আ’লীগ আজ রাষ্ট্র ক্ষমতায়। আওয়ামীলীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহীর তানোর উপজেলা অডিটরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আ’লীগের কঠিন সময়ে আমরা রাজপথে হাজারো বাধা উপেক্ষা করে মিছিল করেছি। আমরা যখন স্লোগান দিতাম বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফাঁসি চাই, ’৭১ এর রাজাকার এখন বাংলা ছাড়। তাঁরা এইসব স্লোগান উড়িয়ে দিত, কিন্তু আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে বঙ্গবন্ধুর খুনি ও রাজাকারদের বাংলার মাটিতে বিচার করেছেন দেশরত্ন শেখ হাসিনা।
শেখ হাসিনা যখন দেশে এসেছিল তখন তাকে ধানমন্ডির বাড়িতেও উঠতে দেয়া হয়নি। আজ যখন শুনি কৃষক বলে শেখ হাসিনা সরকার আছে বলেই বিনা মুল্যে সার বীজ পাওয়া যায়, শেখ হাসিনা সরকার আছে বলেই বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী সহ বহু ধরণের ভাতা পাই। এছাড়াও শেখ হাসিনা সরকার আছে বলেই ঈদের সময় মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিমনরা উপহার পায়। নতুন মডেলে সরকার মসজিদ নির্মাণ করছে।

তানোরে বৃক্ষরোপণ করেন আওয়ামীলীগ নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ
তানোরে বৃক্ষরোপণ করেন আওয়ামীলীগ নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ

জননেতা আসাদ আরও বলেন, আ’লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে কেন বাধা দেয়া হয়? এই সভায় স্থানীয় সাংসদ (এমপি) থাকার কথা। কিন্তু তিনি না থেকে বিভিন্ন ভাবে নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি দেখাাচ্ছেন। যারা আ’লীগের ইতিহাস ও ঐতিহ্য জানে না তারা এই দিনে ঘরে বসে অন্যদের ভয়ভীতি দেখায়। দেশের প্রতিটি জায়গায় উন্নয়নের জোয়ার বইছে। আর তানোর ও গোদাগাড়ী এলাকায় রাস্তা দেখলে মনে হয় এখানে বিরোধী দলের এমপি আছে।
এই দিনে এমপির উচিত ছিল মহামারী করোনাভাইরাস সম্পর্কে শেখ হাসিনা যে ৩১ দফা মানার আহবান জানিয়েছেন সে বিষয়ে নেতা-কর্মীদের সচেতন করা।
তিনি আরও বলেন, এরশাদ সরকারের সময় সেনাবাহিনী মিছিল করতে দিবে না, কিন্তু আমি আসাদ ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে মিছিল করেছিলাম। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনের আগে রাজশাহীতে মিছিল করতে দিবে না। কিন্তু শত বাধাঁ পেরিয়ে আমরা মিছিল করে দেখিয়ে দিয়েছিলাম।
আজ আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইরাকসহ নানা দেশে বিদেশি সেনা রয়েছে। কিন্তু বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডন হয়ে দিল্লিতে আসেন। দিল্লিতে এসে তিনি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধিকে বলেছিলেন, আমার বাংলা থেকে কখন সেনা প্রত্যাহার হবে, জবাবে ইন্দিরা গান্ধি বঙ্গবন্ধুকে বলেছিলেন, আপনি বসেন সেনা প্রত্যাহার হবে, তিনি বসেন নি শেষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলতে বাধ্য হয়েছিলেন ১৯৭২ সালে আপনার জন্মদিনে সেনা প্রত্যাহার হবে। ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে যখন তিনি পৌঁছেছিলেন সবাই দাঁড়িয়ে তাকে শ্রদ্ধা জানিয়েছিল।
তিনি জাতিসংঘের মহাসচিবকে বলেন, আমি বাংলায় ভাষণ দিব কারণ ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনে আমরা বাংলার মানুষ ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে তখন জাতির পিতাকে বাংলায় ভাষণ দিতে বাধ্য হন।
জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বিশ্বের প্রভাবশালীর ১০ জনের একজন।
তানোর আ’লীগের সভাপতি গোলাম রাব্বানী ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে নতুন রুপে আ’লীগ গঠন করা হবে। আমি হুশিয়ার করে বলে দিতে চাই আ’লীগের কোন নেতাকর্মীকে অযথা ভয়ভীতি দেখাবেন না।
পুলিশ প্রশাসনকে অনুরোধ করব আ’লীগের কোন নেতাকর্মী অপরাধ করলে তদন্তে প্রমাণ হলে তাকে গ্রেফতার করবেন। আমি আজ অনেক দিন পর প্যান্ট শার্ট পরেছি, কারণ আমাকে নাকি এই সভায় আসতে দেয়া হবে না। আমি কারো রক্তচক্ষুকে ভয় পাই না। আজ সারা বিশ্বে মহামারী করোনাভাইরাস থেকে মহান আল্লাহতায়ালা দেশ ও জাতিকে রক্ষা করুক। যারা করোনায় মারা গেছেন তাদেরকে আল্লাহপাক জান্নাতবাসী করুক আমীন।
সভার শুরুতে জাতীয় সঙ্গীতের সুরে সুরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা ও প্রয়াত দুই বারের সাবেক মন্ত্রী মোহাম্মাদ নাসিম, প্রয়াত ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মাদ আব্দুল্লাহ এবং সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক সফল মেয়র বদর উদ্দিন আহমেদ কামরানের আত্মার মাগফিরাত কামনায় এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয় ।
তানোর উপজেলা আ’লীগের আয়োজনে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি গোলাম রাব্বানীর সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন।
এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন জেলা আ’লীগের সাবেক সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট মুকবুল খান, কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুসলেম উদ্দিন প্রামানিক, উপজেলা আ’লীগ নেতা তোফাজ্জল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক পাপুল সরকার, তানোর পৌর আ’লীগ সভাপতি ইমরুল হক, সহসভাপতি মোজাম্মেল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি আব্দুল আজিজ, সরনজাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সাদাৎ, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আরব আলী, উপজেলা আ’লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য সাবেক সার্জেন্ট মনির, মুন্ডুমালা পৌর আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান প্রমুখ।
এসময় উপজেলার সকল ইউনিয়ন ও দুই পৌরসভার নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা হাসিবুল ইসলাম।

Leave a Response