Wednesday, October 21, 2020
উত্তরাঞ্চলটপ নিউজরাজনীতিরাজশাহী

কোলাকুলি করলেন লিটন-বুলবুল

272views

কোলাকুলি করলেন লিটন-বুলবুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। দুজনার পথ ভিন্ন। একজন আরেকজনের চরম প্রতিদ্বন্দি । ভোটের মাঠের প্রচারনা এখনো পুরো জমে না উঠেলেও এই দুই প্রার্থীর সমর্থকরাও প্রকাশ্য দুরত্ব বজায় রেখে চলছেন। দুই প্রার্থীই নিজের পক্ষে কথা বলার পাশাপাশি তুলে ধরছেন অপরের ব্যর্থতার কাহিনী। তবে, সামনা সামনি পড়ে এই দুই প্রতিদ্বন্দি নেতা করলেন কোলাকুলি।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজশাহী কলেজ মাঠে সময় টেলিভিশনের নির্বাচনী টকশো অনুষ্ঠানের রেকর্ড শেষে তারা কোলাকুলি করেন। এ সময় উপস্থিত নাগরিকরা আনন্দ প্রকাশ করেছেন। অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করতে চাইলে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এগিয়ে যান। হাত বাড়ান বুলবুলের দিকে। হাত ধরে দু’জন কয়েক মুহুর্ত হাঁসি মুখে তাকিয়ে থেকে জড়িয়ে ধরেন, কোলাকুলি করেন।

খায়রুজ্জামান লিটন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র। আর মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সদ্য বিদায়ী মেয়র। আগামী ৩০ জুলাই রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে প্রধান দুই প্রতিদ্ব›দ্বী হিসেবে লড়ছেন লিটন ও বুলবুল। শুক্রবার বিকেল ৪টা ১৫মিনিটে সময় টেলিভিশনের বার্তা প্রধান তুষার আবদুল্লাহর উপস্থাপনায় নির্বাচনী টকশোর দৃশ্যধারণ শুরু হয়। প্রায় ৫০ মিনিটের টকশোতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা নিজেদের সফলতা ও অপরের ব্যর্থতার বিষয়গুলো তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানের শেষের দিকে উপস্থাপক তুষার আবদুল্লাহ মেয়র প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটন ও বুলবুলের সৌর্হাদ্যপূর্ণ সম্পর্কের কথা তুলে ধরে নির্বাচনের পরেও এমনই সৌর্হাদ্যপূর্ণ সম্পর্ক রাখার জন্য আহ্বান জানিয়ে টকশো শেষ করেন।

টকশোতে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আমি মেয়র না থাকলেও রাজশাহীবাসীর উন্নয়নের কথা চিন্তা করে বিভিন্ন মন্ত্রনালয়ে গেছি, যাতে রাজশাহীর উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প পাওয়া যায়। কিন্তু সদ্য বিদায়ী মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল মেয়র হয়েও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেননি। এমনকি প্রধানমন্ত্রী কয়েকবার রাজশাহীতে আসলেও বুলবুল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেননি। উন্নয়নের জন্যে কোনো প্রকল্প ও বরাদ্দ চাননি প্রধানমন্ত্রীর কাছে। এতে করে পিছিয়েছে রাজশাহী। অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর কিছুটা এগিয়ে গিয়ে বুলবুলের সাথে হাত মেলান খায়রুজ্জামান লিটন। পরে বুকে জড়িয়ে কোলকুলি করেন তারা।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৮ জুন রাসিক নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিনে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের অসুস্থ সন্তানকে দেখতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটন।

Leave a Response