Tuesday, October 27, 2020
টপ নিউজশিক্ষাঙ্গন

কোটা আন্দোলন দমনে সক্রিয় রাবি ছাত্রলীগ

225views

কোটা আন্দোলন দমনে সক্রিয় রাবি ছাত্রলীগ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক: দেশব্যাপী চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিভিন্ন কর্মসূচী পালনের মাধ্যমে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েও (রাবি) সক্রিয় রয়েছে আন্দোলন। তবে আন্দোলনকারীদের দমনে সক্রিয় ভূমিকায় নেমেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। গত তিন দিনে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছে অন্তত ২৪ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম তারেককে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। ভারী কিছু দিয়ে আঘাত করায় তার পায়ের হাড় ভেঙে গেছে। আপাতত প্লাস্টার করে রাখা হয়েছে। তবে অস্ত্রোপচার না করলে তার পা স্বাভাবিক হবে না। তাছাড়া মাথায় সিটি স্ক্যান করা হয়েছে। সিটি স্ক্যান রিপোর্ট অনুযায়ি তারেকের মাথায় প্রচন্ড আঘাত লেগেছে। সারা শরীরে প্রচুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এর আগে গত শনিবার রাতে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু ফেসবুকে আন্দোলনকারীদের কঠোর হস্তে দমনের হুমকি দেন। এরপর রোববার সকাল ১০ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে কোটা সংস্কারের দাবিতে ঢাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের উপর লাঠি সোটা নিয়ে মারধর করে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

পরে বেলা ১১ টার দিকে গ্রন্থাগারের সামনে সাংবাদিকদের সাক্ষাৎকারের সময় কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের উপর আবারো ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ধাওয়া করে। এতে অন্তত ১২ জন শিক্ষার্থী আহত হয়। এদের মধ্যে আব্দুল্লাহ শুভ ও অন্তরসহ তিন জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) ভর্তি করা হয়। মানববন্ধনের ব্যানার কেড়ে নেওয়াসহ ধাওয়া ও মারধরের কারণে কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ও বিভিন্ন অ্যাকাডেমিক ভবনে অবস্থান নেয়। এসময় ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা শোডাউন দিতে থাকে। এদিকে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে মানববন্ধন কমসূচী পালন করতে না পারায় ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে শ্লোগান দিতে দেখা গেছে কোটা আন্দোলনকারীদের। অন্যদিকে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বে প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী মটর বাইকে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে মহড়া দিতে থাকে। এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সোমবার সকাল ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে কালো পতাকা মিছিলের কথা থাকলেও ছাত্রলীগের অবস্থানের কারণে সামনে আসতে পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা। পরে জাতীয় পতাকা হাতে বিকেল ৪ টার দিকে প্রধান ফটকের সামনে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা পুলিশের উপস্থিতিতেই এলোপাথারি মারধর করতে থাকে। মারধরে কোটা আন্দোলনকারী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক মাসুদ মোন্নাফসহ অন্তত ১১ জন আহত হয়।
ফের এক শিক্ষার্থীকে মারধর করলো ছাত্রলীগ : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বুধবার বেলা ১১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনের সামনে মারধর করা হয়। মুখে আঘাত করায় তার মুখ ও ঠোঁট ফুলে যায়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমানের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ওই শিক্ষার্থী জসীম উদ্দিন বিজয় আরবী বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

জসীম সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, ‘বিভাগের একটা পরীক্ষা ছিল। আমি মেইনগেট দিয়ে আসছিলাম। আসার পথে কোন কারণ ছাড়াই ছাত্রলীগের সভাপতিসহ কয়েকজন নেতা আমাকে আটকে রেখে মুখে আঘাত ও মারধর করে।’ এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করেন। তিনি দাবি করেন, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় তাকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি। মারধরের কোন ঘটনা ঘটেনি। এদিকে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল থেকে আহত শিক্ষার্থীকে প্রক্টর দপ্তরে এনে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি। পরে মতিহার থানায় পুলিশের কাছে হস্তাস্তর করি। মতিহার থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন বলেন, জসীম নামের শিক্ষার্থী পুলিশ হেফাজতে আছে। পরে অভিযোগের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Response