Thursday, October 22, 2020
টপ নিউজরাজনীতি

কে হচ্ছেন নগর পিতা?

215views

কে হচ্ছেন নগর পিতা?

Rajshahi City Corporationহাবিব আহমেদ: দীর্ঘ প্রচারণার পর আজ সোমবার রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। নিরাপত্তার চাদরে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে । ইতিমধ্যে ভোটগ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। এক যোগে ৩০টি ওয়ার্ডে ভোটগ্রহণ শুরু হবে সকাল ৮টায়। তবে ভোট গ্রহণের আগেই ভোটারদের মাঝে শুরু হয়েছে মেয়র নিয়ে নানা গুঞ্জন। এবার কে হচ্ছেন নগর পিতা ? এই নিয়ে নগরীর আনাচে কানাচে, চা স্টলে চলছে নানা আলোচনা সমালোচনা। ভোটারদের ভাবনায় এবার রাসিক দখল করবে কে। সরকার সমর্থক দলের মেয়র প্রার্থী না বিএনপি সমর্থিত বিদায়ী মেয়র প্রার্থী।

এবার রাসিক নির্বাচনে ৫জন মেয়র ও ২২৩ কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন। এরমধ্যে সংরক্ষিত মহিলা আসনে প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন ৫২জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন ১৬৬জন। মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছে বড় দু’দল আওয়ামী লীগ মনোনিত মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বিএনপির মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির হাবিবুর রহমান হাবিব ও সতন্ত্র প্রার্থী মুরাদ মুর্শেদ। সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৬০ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৫২ জন প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন। রাসিকে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৮হাজার ১৩৮। এরমধ্যে মহিলা ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬২হাজার ২৫৩ ও পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৫৬হাজার ৮৫। মোট ১৩৮টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে। এছাড়াও সাধারণ ২৪টি ভোটকেন্দ্র রাখা হয়েছে। এবার রাসিক নির্বাচনে দুটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ হবে। শুধু নগরীর ২২ নম্বর ওয়ার্ডে দুটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে। গত নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ছিল ১শ’ ৩৭টি। মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৮৬ হাজার ৯শ’ ১৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১লাখ ৪৩ হাজার ৩৯৫ জন এবং নারী ভোটার ছিল ১ লাখ ৪৩ হাজার ৫২২ জন।

অপরদিকে বর্তমান ভোটের পাশাপাশি গত নির্বাচনের ভোটের হিসাব নিকাশ করছেন সাধারণ ভোটাররা। গত নির্বাচনের ভোটের হিসেবে দেখা যায়, ৪৭ হাজার ভোটের ব্যবধানে জয় লাভ করেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ৫বছর মেয়র থাকাকালীন অবস্থায় নগরীর ব্যাপক উন্নয়ন করার পরও তাকে পরাজয় বরণ করতে হয়। হাড্ডাহাড্ডি লাড়াইয়ে জয়ের মুকুট ছিনিয়ে নেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী বুলবুল। গত ২০১৩ সালের নির্বাচনে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল আনারস প্রতিক নিয়ে পেয়েছিলেন ১ লাখ ৩১ হাজার ৫৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বদ্বি আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটন তালা প্রতীক নিয়ে পেয়েছিলেন ৮৩ হাজার ৭শ’ ২৬ ভোট। ফলাফলে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল খায়রুজ্জামান লিটনের চেয়ে ৪৭ হাজার ৩শ’ ৩২ ভোট বেশি পেয়ে জয় লাভ করেন। আর একমাত্র শক্তিশালি স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান মোট ভোট পেয়েছিলেন ৭শ’ ৯১ ভোট।

এদিকে রাজশাহী বরাবরই বিএনপির ঘাঁটি। বিএনপির ঘাটি হলেও বর্তমানে শাসক দল আওয়ামী লীগ এখন রাজশাহীতে বেশ শক্তিশালী। ফলে রাসিক নির্বাচনে দ্বিমুখী লড়াই হবে বলে ধারণা করছে ভোটাররা। লড়াই শেষে জয়ের মুকুট শোভা পাবে কার মাথায়, আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এর নাকি বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের? তবে এবার ভোটের মাঠের চিত্র একেবারে ভিন্ন। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভেদ ছিল। যার কারণে লিটনকে পরাজয় বরণ করতে হয়েছে। কিন্তু এবার আওয়ামী লীগসহ অঙ্গসংগণের মধ্যে শুরু থেকেই একাত্মতা দেখা গেছে। যার কারণে এবার আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর জয় অনেকটাই নিশ্চিত বলে মনে করছেন প্রবীণ রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তবে এবার গত বছরের আওয়ামী লীগের মত অবস্থা বিএনপির। নির্বাচনের শুরু থেকেই বিএনপির মধ্যে কয়েকটি ভাবে বিভক্ত দেখা যায়। শীর্ষ নেতারাও বিএনপির মেয়র প্রার্থী বুলবুলের কাছ থেকে ছিলো অনেক দুরে। এবার জামায়াতের সমর্থনও পাননি বুলবুল। নেতা সমর্থকদের মধ্যে বিভেদের কারণে বুলবুল এবার মাঠ গোছাতে পারেননি। শুরু থেকেই তিনি অভিযোগ দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। শেষ হয় অভিযোগ দিয়ে। এই অবস্থায় নগরবাসি দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন কে হবেন আগামী দিনের রাসিকের মেয়র।

Leave a Response