Friday, October 23, 2020
টপ নিউজরাজশাহী

এমপি আয়েনের বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতার অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

401views

এমপি আয়েনের বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতার অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

mp ayenuddinনিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিনের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ করেছেন স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা। শনিবার রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বরাবরে লিখিত এ অভিযোগ করেন পবা উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য সাইদুর রহমান বাদল।

সাইদুর রহমান বাদলের অভিযোগ, হরিপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সোবহানের ছেলে আজিমুদ্দিনকে আন্ধারকোঠা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ্য প্রহরী পদে চাকরি দেয়ার জন্য চার বছর আগে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন তিন লাখ টাকা নেন। তিনি নিজে ঢাকায় ন্যাম ভবনে সাংসদের বাসায় গিয়ে টাকা দেন। কিন্তু আজিমুদ্দিনকে চাকরি দেয়া হয়নি। সেখানে অন্য আরেক জনের চাকরি হয়েছে। পরবর্তিতে অনেক দেন দরবার করে হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান বজলে রেজভি আল হাসান মঞ্জিলের মাধ্যমে বছর খানেক আগে দুই লাখ টাকা ফেরত দেন সাংসদ। এখনো এক লাখ টাকা ফেরত দেননি।

সাইদুর রহমান আরও বলেন, ‘আমার নামে বিট খাটাল করে দেয়ার জন্য সাংসদ আরও এক লাখ ৪০ হাজার টাকা নেন। কিন্তু তিনি তা করে দেননি। পরে ৪০ হাজার টাকা ফেরত দিলেও এক লাখ টাকা এখনো দেননি।’ সাইদুর বলেন, ‘এই দুই লাখ টাকা তারা এমপির কাছে পান। এ জন্য ফোন করলে এমপি ফোন ধরেন না বা দেখা করতে গেলেও তাদের সাক্ষত দেয়া হয়না।’

তবে, এই অভিযোগ অস্বিকার করেছেন সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন। তিনি দাবি করেন, ‘নৈশ্য প্রহরী নিয়োগের অর্থ লেনদেন ও অনিয়ম করেছে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়াসিন আলী। এ করণে তাকে ওই কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়। সাইদুর রহমান বাদলের সঙ্গে আমার কোন দিন কোন বিষয় নিয়ে অর্থ লেনদেন হয়নি। কিছু নেতার মদদে বিতর্কিত করতে ষড়যন্ত্র করে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করা হচ্ছে।’ এ বিষয়ে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়াসিন আলী বলেন, ‘প্রথমে নৈশ্য প্রহরী নিয়োগ কমিটিতে ছিলাম। কিন্তু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন প্রত্যাশী হওয়ার কারণে এমপি তাকে ওই কমিটি থেকে বাদ দেন। এমপির নির্দেশনায় সব নিয়োগ হয়েছে। এখানে কারও সঙ্গে আমার লেনদেনের কোন সুযোগ নেই। আমার বিরুদ্ধে তিনি যা বলেছেন তা সত্য নয়।’

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, একজন এমপির বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের একটি অভিযোগ জেলা আওয়ামী লীগের কাছে দেয়া হয়েছে। এটি সাংগঠনিক কোন বিষয় নয়। এ নিয়ে সাংগঠনিকভাবে কিছু করারও নেই। তবে অভিযোগটি দলের হাই কমান্ডে পাঠানো হবে।

Leave a Response