Monday, October 19, 2020
টপ নিউজরাজশাহী

ঈদ উপলক্ষেও বিশেষ পদক্ষেপ নিতে পারছেনা চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ

494views

ঈদ উপলক্ষেও বিশেষ পদক্ষেপ নিতে পারছেনা চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ

কামারুজ্জামান চিড়িয়াখানাকামরুল ইসলাম: নগরীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি বিনোদন কেন্দ্র হচ্ছে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে বেড়াতে আসেন ভ্রমণ পিপাষু মানুষ। অনেক প্রতিষ্ঠান থেকে বনভোজনের জন্যও এখানে আসেন। তাদের পিকনিকের জন্য রয়েছে বেশ কয়েকটি পিকনিক স্পট। এখানে রয়েছে বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির অনেক পশু-পাখি। সেই সাথে রয়েছে নানা ধরনের ফুলগাছ ও বৃক্ষলতা। শিশুদের বিনোদনের জন্য রয়েছে বিভিন্ন ধরনের রাইডার। চিড়িয়াখানার মাঝখান দিয়ে রয়েছে একটি খাল। তবে এবার চিড়িয়াখানায় বঙ্গবন্ধু নভো-থিয়েটার তৈরী কাজের জন্য বিনোদনের বিশেষ কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেননি চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

বিশেষ করে যে-কোনো বড় ধানের উৎসবের সময় হাজার হাজার মানুষ এখানে বেড়াতে আসেন। তারা শিশুদের দেখাতে নিয়ে আসেন বিভিন্ন প্রজাতির পশু-পাখি ও খেলাধুলার জন্য বিভিন্ন খেলনায় চড়াতে। চিড়িয়াখানর খাঁচায় থাকা পশু-পাখির নাম, প্রজাতি, বাসস্থান, খাদ্য এবং আচরণ সম্পর্কে বর্ণন দেয় থাকায় শিশুদের পশুপাখি চেনাতে খুব সহজ হয় বলেই শিশুদের নিয়ে চিড়িয়াখানায় বেড়তে আসেন অভিভাবকেরা। দুই বাচ্চাকে নিয়ে ঘুরতে আসা, ফরিদ হোসেনের অভিযোগ হচ্ছে বাচ্চাদের নিয়ে ঘুরতে আসার অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে পশুপাখির সাথে তাদের পরিচয় করানো। তবে বর্তমানে চিড়িয়াখানায় আমাদের জাতীয় পশু বাঘ এবং বনের রাজ সিংহ না থাকায় তার গুরুত্বপূর্ণ ২টি পশুর সথে বাচ্চাদের পরিচয় করানো সম্ভব হয়না। তিনি আরো বলেন, চিড়িয়াখানার দক্ষিণ দিকে বাচ্চাদের বিভিন্ন রকামে খেলনা থাকলেও অধিকাংশ খেলনায় চড়ার অযোগ্য হয়ে আছে।

এব্যাপারে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চিড়িয়াখানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ভেটেনোরিয়ান সার্জন ড. মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দীন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জেলা প্রশাসকের আওতায় চিখানায় বঙ্গবন্ধু নভো-থিয়েটা স্থাপনের কাজ শুরু হতে চলেছে। সেজন্যই চিড়িয়াখানার মেরামতে জন্য তেমন কোনো উওদ্যোগ নেয়া সম্ভব হয়নি। নতুন ভাবে পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে, সে অনুযায়ী কাজ শুরু করলে খেলনা গুলো স্থানান্তরের প্রয়োজন রয়েছে। সেইজন্যই খেলনা গুলো নির্মানের কাজে হাত দেয়া সম্ভব হয়নি। বাঘ ও সিংহের ব্যপারে নির্মনের কাজ সম্পূণ ভাবে শেষ হলে বাঘ ও সিংহের জন্য উপযোগী করে রাখার যায়গা তৈরী করে তারপর সেগুলো আনা হবে বলে জানান।

Leave a Response