Saturday, October 24, 2020
টপ নিউজরাজশাহী

অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্তি পেলো প্রতারক ইব্রাহিমের পরিবার

218views

অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্তি পেলো প্রতারক ইব্রাহিমের পরিবার

শতশত কোটি টাকা নিয়ে উধাও ইব্রাহিমগোদাগাড়ী প্রতিনিধি: রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালানো ইব্রাহিমের বাড়ির তালা অবশেষে খুলেছে এলাকাবসী। বুধবার বেলা ১১ টার দিকে গোদাগাড়ী পৌর মেয়র মুনিরুল ইসলাম বাবুর উপস্থিতিতে স্থানীয় লোকজন তালা খুলে দেন। এতে গৃহবন্দি থেকে মুক্তি পান এই পরিবার। স্থানীয়রা টাকার দাবিতে ইব্রাহিমের বাড়ীতে তালা লাগিয়েছিলেন। ফলে গৃহবন্দী হয়ে পড়েন ইব্রাহিমের মা, স্ত্রী ও সন্তান। বুধবার রাজশাহী সংবাদ পত্রিকায় এবিষয়ে খবর প্রকাশের পর মুক্তি মিলেছে পরিবারের সদস্যরা।

প্রতারণার শিকার লোকজন জানান, গোদাগাড়ী পৌর এলাকার মহিশালবাড়ী গ্রামের অবসর প্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা মৃত ওমর আলীর ছেলে ইব্রাহিম আলী সিদ্দীক ষ্টোর নামে কোম্পানী খুলেন। সরকারীভাবে কোন অনুমোদন না নিয়েও সিদ্দীক ষ্টোরের নামে তিনি ইব্রাহিম আলী এলাকার লোকজনের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আমানত সংগ্রহ করে। এক লাখ টাকায় প্রতি মাসে ১৩ হাজার টাকা লাভ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। প্রথম দিকে কয়েকজন আমানতকারীকে চুক্তি মোতাবেক লাভের অংশের টাকা পরিশোধ করলে শতশত ব্যাক্তি অধিক লাভের আসায় সিদ্দীক ষ্টোরের মালিক ইব্রাহিম আলীর কাছে টাকা জমা দেন। কিন্ত বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে গত ১০ জুলাই আত্মগোপন করেন ইব্রাহিম আলী। এর পর থেকে ইব্রাহিম আলীর মুঠোফোনটিও বন্ধ রয়েছে।

সূত্র জানায়, স্থানীয় বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অধিক লাভের আশায় ইব্রাহিমকে টাকা দেন। অনেক মাদকব্যবসায়িও তাকা মোটা অংকের টাকা দিয়েছেন। আবার দিনমজুররাও তাদের জমানো টাকা দিয়ে প্রতারিত হয়েছে। এমনকি এনজিও থেকে ঋন করেও কেউ কেই টাকা তুলে দেন ইব্রাহিমের হাতে। তিনি আত্মগোপন করার পর থেকে চরম হতাশার মুখে পড়েছেন সাধারণ এসব মানুষ। ক্ষুব্ধ হয়ে তারা ইব্রাহিম আলীর মহিশালবাড়ীস্থ বাড়ীতে ভিড় জমায় এবং এক পর্যায়ে তারা তার বাড়ির বাইরে তালা ঝুলিয়ে দেয়। ইব্রাহিম আলীর মা হাজেরা বেগম দাবি করেন, ইব্রাহিম কোথায় গেছে তা জানা নেই। সে যোগাযোগও রাখছেনা। তবে এলাকার লোকজন জানান, ইব্রাহিম বর্তমানে রাজশাহী শহরে কোথাও অবস্থান করছে। শ্রীঘ্রই সে থাইল্যান্ড চলে যাবে এমনটাই তারা জানতে পেরেছে।

এদিকে, এ প্রসঙ্গে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম বলেন প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেয়ার বিষয়টি আমানতকারীদের কাছ থেকে পুলিশ অবহিত রয়েছে। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে প্রতারণার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Response